কিভাবে ফাইভার থেকে টাকা আয় করবেন mobilereview.online

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম
আস্সালামু আলাইকুম,সবাই কেমন আছেন? আশা করি ভাল আছেন, আজ আপনাদের সামনে হাজির হলাম খুব গুরুত্বপুর্ন একটা টপিক নিয়ে, আশা করি শেষ পর্যন্ত পরবেন,হয়ত নতুনদের জন্য অনেক উপকার হবে

ফ্রিলান্সিং করার মজাটাই একদম আলাদা, আপনি বাইরে কোনো কাজ করে যতোই আয় করেন না কেনো ফ্রিলান্সিং করে আয় করে টাকা পাওয়ার আলাদা একটা মজা আছে । অনেকে আবার মনে করে ফ্রিলান্সিং করা খুব কঠিন কাজ, না আপনি কাজ জানলে ফ্রিলান্সিং আপনার কাছে সহজ হয়ে যাবে ।

ফ্রিলান্সিং হলো একটা মুক্ত পেশা যেখানে কোনো চাপ নাই, যখন ইচ্ছা যে সময় ইচ্ছা কাজ করে টাকা নিয়ে নিতে পারবেন । তবে হ্যা, কাজ তো পেতে হবে তাই না ? কাজ না পেলে কি করবেন ?

অনেক ফ্রিলান্সার আছে যারা কাজ করে সময় পায় না একটা কাজ শেষ হতে না হতে আরেকটা কাজ পেয়ে যায় আবার কিছু ফ্রিলান্সার আছে যারা কাজই পাই না

কেনো এমন হয় ?

যে যতো ফ্রিলান্সিং কাজে আগে যুক্ত হয়েছে সে ততো বেশি কাজ পাই কারণ কাজ করে করে সে এখন অনেক গুলো রিভিউ অর্জন করেছে , একারণে অন্যান্য ক্লাইন্টরা অভিজ্ঞ ফ্রিলান্সারদেরকেই কাজটি দেই তারা একটু দাম বেশি নিলেও তার থেকেই কাজ করে নেই । নতুন ফ্রিলান্সারদেরকে সহজে কেউ কাজ দিতে চায় না ।

আমি আজকে আপনাদেরকে একটি ফ্রিলান্সিং সাইটের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিব যেখানে আপনি ক্লাইন্টদের নয় ক্লাইন্টরা আপনাকে মেসেজ করবে কাজের জন্য ।

ফাইভার 

ফাইভার নামটি এর আগেও হয়তো শুনেছেন অনেকে হয়তো চিনেন ও এটি একটি জনপ্রিয় ফ্রিলান্সিং প্লাটফর্ম, বিশেষ করে নতুন্দের জন্য সাইট্টি অনেক ভালো । আপনি যেই কাজ জানেন সে কাজেরই গীগ খুলে রাখতে হবে, এবং ঐ জিনিসটা কারোর প্রয়োজন হলে সে ওটার নাম লিখে সার্চ করবে এবং আপনারটি সার্চ রেজাল্টে খুজে পেলে আপনাকে মেসেজ করে কথা বলবে । এবং কথা বলার পর ক্লাইন্টের আপনাকে ভালো লাগলে কাজটি আপনাকে দিবে । কাজটি সঠিক সময়ের মধ্যে শেষ করে ৫স্টার রেটিং নিয়ে নিন । হয়ে গেলো আপনার একটি কাজ এরপর কোনো ক্লাইন্ট আপনার ঐ রেটিংটি দেখে আরো কাজ দিতে পারে ।

চলুন ঘুরে আসি ফাইভার থেকে

প্রথমে নিচের লিংকে প্রবেশ করুন…

Fiverr.Com

এরপর এই ওয়েবসাইটে গিয়ে ফটাফট একটি একাউন্ট তৈরি করে নিন, একাউন্ট তৈরী করা খুবই সহজ তাই দেখিয়ে দিলাম না ।একাউন্ট তৈরী হয়ে গেলে মেইল এবং নাম্বার ভেরীফাই করে নিন ।

তারপর আপনার সেলার ড্যাসবোর্ডে প্রবেশ করে উপর থেকে Gigs এ ক্লিক করুন ।

এখানে আপনার প্রত্যেকটি গীগস দেখতে পাবেন, এবং ফাইভার ফ্রি মেম্বারশীপ হিসাবে আপনি সর্বোচ্চ ৭টি গীগ তৈরী করতে পারবেন । নতুন গীগ তৈরীর জন্য CREATE A NEW GIG এ ক্লিক করুন ।

এবার আপনার গীগ টাইটেল, এবং গীগ ক্যাটাগরী সহ ট্যাগ বসিয়ে দিন ।

এবার আপনার গীগ প্যাকেজ তৈরী করুন, আপনি সর্বনিম্ন ১টি এবং সর্বোচ্চ ৩টি প্যাকেজ তৈরী করতে পারবেন একটি গীগসে । আমি বলব তিনটি প্যাকেজ-ই তৈরী করে রাখুন এক্ষেত্রে আপনার গীগটে ভালো রেংকে আসবে । প্যাকেজ নাম, বর্ণ্না, ডেলীভারি সময়, এবং রিভিশন ও দাম বসিয়ে দিন ।

এরপর আরো কয়েকটি স্টেপ আসবে সেগুলো একে একে পূরন করে সাবমিট করে আপনার গীগটি পাবলিশ করে দিন ।

ব্যাস কাজ শেষ

এবার যার দরকার হবে সে নিজে এসেই আপনাকে মেসেজ করবে, ফাইভারে নতুন হলে একটু বেশি সময় এক্টিভ থাকুন । অনেক সময় অনেক বায়ার সেলারকে এক্টিভ না পেলে মেসেজ ও করে না ।

সতর্ক 

ফাইভারে নতুন হলে অবশ্যয় ফাইভারের নিয়ম পড়ে নিবেন নাহলে ফাইভারের নিয়মের বাইরে কোনো কাজ করলে তারা আপনার একাউন্টি বাতিল করে দিবে ।

আপনার গীগে অন্য কারোর গীগের ছবি, ভিডিও কিংবা বর্ণ্না কপি করে দেওয়া যাবে না ।

কোনো ক্লাইন্ট মেসেজ করলে তার নাম্বার, কিংবা ফেসবুক আইডি অথবা পারসোনাল ভাবে যোগাযোগ করা যাবে না ।

ক্লাইন্টের থেকে সরাসরি আপনার কোনো একাউন্টে পেমেন্ট নেওয়া যাবে না ।

এছাড়া ক্লাইন্টকে মেসেজ করার সময় খুবই সচেতন থাকবেন, একবার আপনার একাউন্টি ফাইভার বাতিল করলে তারা সেটা আর ফিরিয়ে না ও দিতে পারে ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *