বিসমিল্লাহির রহমানির রাহিম

আসসালামু আলাইকুম সবাই কেমন আছেন আশা করি ভাল আছেন আমিও আপনাদের দোয়াতে আল্লাহর রহমতে ভালো আছি প্রিয় বন্ধুরা আজ আমি আপনাদের সামনে নতুন একটি রেসিপি নিয়ে হাজির হয়েছি আশা করি আজকের রেসিপি টা আপনাদের কাছে অনেক অনেক ভালো লাগবে প্রিয় বন্ধুরা তাহলে চলুন কথা না বাড়িয়ে শুরু করা যাক আজকের গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা

আসুন দেখে নেই উপকরণসমূহ

প্রিয় বন্ধুরা আপনাদেরকে সহজেই বোঝানোর জন্য এখানে আমি আমার মতো করে উপকরণসমূহের পরিমাণ উল্লেখ করেছি উদাহরণস্বরূপ আপনারা যখন বাসায় বানাবেন আপনাদের যতটুকু প্রয়োজন ততটুকুই নিবেন আশাকরি বুঝতে পেরেছেন

বাসমতী চাল ৫০০ গ্রাম
আদা বাটা ১  চামচ
খাসির রানের মাংস ১ কেজি
রসুন বাটা ১ চামচ
টক দই ১ কাপ
জিরা বাটা ১ -চামচ
কেওড়া জল ৪  চামচ
এলাচ-দারুচিনি-জয়ফল-জয়ত্রী-শাহিজিরা গুঁড়া ১ চামচ
জাফরান সিকি চামচ
ঘি আধা কাপ
চিনি ১  চামচ
তেল আধা কাপ
লবণ স্বাদমতো
পেঁয়াজ কুচি আধা কাপ
গোলমরিচের গুঁড়া আধা চামচ
নারকেলে দুধ ২ কাপ
মাওয়া সিকি কাপ
কাজুবাদাম কুচি সিকি কাপ
শাহিজিরা আধা চামচ
কাঠবাদাম কুচি সিকি কাপ
কাঁচা মরিচ ৬-৭টা
কিশমিশ সিকি কাপ
তরল দুধ আধা

 

আসুনদেখে নেই কিভাবে বানাতে হবে

চাল ২০ মিনিট ভিজিয়ে পানি ঝরিয়ে নিন। জাফরান ১  চামচ কেওড়া ও আধা কাপ দুধ দিয়ে ভিজিয়ে রাখুন। চালের চার গুণ পানি হাঁড়িতে নিয়ে তাতে লবণ, শাহিজিরা, দারুচিনি ও এলাচ দিয়ে ভেজানো চাল দিয়ে ফুটিয়ে নিন। চাল সামান্য শক্ত থাকতে কাঁচা মরিচ দিয়ে নামিয়ে পানি ঝরিয়ে নিন
অন্য পাত্রে ২ টেবিল চামচ ঘি দিয়ে সব বাদাম ও কিশমিশ ভেজে নিন। মাংস ধুয়ে পানি ঝরিয়ে ১০ মিনিট টক দই দিয়ে মেখে রাখুন। হাঁড়িতে পেঁয়াজ সোনালি করে ভেজে অর্ধেক তুলে নিন। বাকি বেরেস্তার মধ্যে সব বাটা ও গুঁড়া মসলা দিয়ে কষান। মাংস দিয়ে রান্না করুন। এতে নারকেলের দুধ দিয়ে সেদ্ধ করে নিন

এবার হাঁড়িতে সামান্য ঘি দিয়ে অর্ধেক রান্না করা চাল বিছিয়ে তার ওপর রান্না মাংস দিন। বেরেস্তা চিনি দিয়ে মাখিয়ে ছড়িয়ে দিন। সঙ্গে বাদাম ও দুধে ভেজানো জাফরান ছিটিয়ে দিন। সবার ওপরে ঘি গলিয়ে ছড়িয়ে দিন।
১৫ থেকে ২০ মিনিটের জন্য তাওয়ার ওপর ঢাকনা দিয়ে দমে বসান। খেয়াল রাখতে হবে, এ সময় ঢাকনা খোলা যাবে না। এবার নামিয়ে পরিবেশন পাত্রে কিছু ভাজা বাদাম, কিশমিশ ও বেরেস্তা ছড়িয়ে পরিবেশন করুন  আপনার  পরিবার আত্মীয়-স্বজন বন্ধু-বান্ধব এবং প্রিয়জনের সামনে আর হয়ে উঠুন সবার প্রিয় একজন রাধুনি হিসেবে প্রিয় মুখ

প্রিয় বন্ধুরা আজ এ পর্যন্তই আশা করি আজকের এই ছবিটা আপনাদের কাছে অনেক অনেক ভালো লেগেছে প্রিয় বন্ধুরা আজকের েসিপিটা আপনাদের কাছে ভাল লেগে থাকলে অবশ্যই আপনার বন্ধু বান্ধবের সাথে শেয়ার করতে ভুলবেন না করে বন্ধুরা আপনারা কোন ধরনের রেসিপি পেরেছেন তো আমাদেরকে জানাতে পারেন আমরা আপনার পছন্দ মতন রেসিপি নিয়ে হাজির হওয়ার চেষ্টা করব  বন্ধুরা রেসিপি নিয়ে আপনাদের কোন ধরনের প্রশ্ন থাকলে আমাদেরকে করতে পারেন আমরা আপনার সকল প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করবো ইনশাআল্লাহ প্রিয় বন্ধুরা আগামী রেসিপি পড়ার আমন্ত্রন জানিয়ে বিদায় নিলাম সবাই ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন আল্লাহ হাফেজ

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *